বাধা এলে আসলে কি ভাবা উচিত

একটি প্রজাপতি যখন জন্ম নেয়,
এর আগে তাকে বাদামের খোসার মত একটি আবরনের মাঝে থাকতে হয় ।


এটিকে কাইটিনের আবরন বলে ।


ম্যাচিউরড হবার আগে, সে এই কাইটিনের আবরনে নিজের পাখা দিয়ে, ক্রমাগতভাবে গুঁতোতে থাকে ।
সারা রাত এভাবে গুঁতোনর পরে, এক সময় সে এটা ভেঙ্গে ফেলে এবং বের হয়ে এসে ওড়া শুরু করে ।


এইভাবে একটি প্রজাপতি যখন কাইটিন ভাঙ্গার সংগ্রাম করতে থাকে, তখন কোন এক দয়ালু ব্যাক্তির যদি মনে দয়ার উদ্রেক হয় –
আহা ! বেচারা প্রজাপতি !!
আমি একটু একে সাহায্য করি । এর আবরন ব্লেড দিয়ে কেটে দেই ।
ফলাফল কি হতে পারে এতে করে ?


প্রজাপতি যখন এইভাবে কাইটিন ভাঙ্গার চেস্টা করে -এই চেস্টার মাঝেই সে ওড়ার মত সক্ষমতাও অর্জন করে ।


আল্লাহ তাকে সে পর্যন্ত কাইটিন ছেড়ার অনুমতি দেন না, যে পর্যন্ত না সে ওড়ার ক্ষমতা অর্জন করে । এবং উড়ে উড়ে খাবার সংগ্রহ করাতে পারে ।
দয়ালু ব্যাক্তি, সংগ্রামরত প্রজাপতিকে সাহায্য করতে গিয়ে আসলে মেরেই ফেলে ।


আল্লাহ মানুশকে এজন্য সমস্যা দেন, যেন সে সেই বাধাকে অতিক্রম করার শক্তি অর্জন করে – এরপরে উড়তে পারে ।
এবং আরো সফল হয় ।
বড় সফলতার জন্য বড় বাধা আসে ।
বাধা মানেই সামনে বড় সাফল্য, সৃষ্টি কর্তার রহমতের দরজা ।

*** *** *** ***

যেকোন ব্যাবসা, উদ্যোগ এর শুরুতে অনেক বাধা আসে । শুরুর বাধা গুলো সমাধান করতে পারলে বাকি কাজ সহজ হয়ে যায় ।

অনিক ভাই চা বাগান করেছিলেন এমন যায়গায়, যেখানে তিনি কাউকেই চেনেন না, এমনকি উনার বাগানের ১ কিলো যায়গার দূরত্বেও কেউ বসবাস করত না । ৫০০ গজ দূরেই ইন্ডিয়ান বর্ডার এর বেড়া ।
উনার শুরুটা ছিল পেয়ারা বাগান দিয়ে । সাথে টমেটো, মরিচ আর অন্য সব সবজিও করেছেন । ফসল নিয়ে যখন পঞ্চগড়ে পাইকারি বাজারে গিয়েছেন, দেখা গিয়েছে সেদিনই ঠাকুরগাও থেকে একই ফসল এসেছে । দাম পান নাই সবজির ।


দমে যান নাই এতে করে ।


পেয়ারা বাগানের এলাকার বাচ্চারা প্রায়ই পেয়ারা চুরি করতে আসত । পঞ্চগড়ের ৪/৫ ডিগ্রী শীতেও রাতের বেলায় বড় টর্চ লাইট নিয়ে রাতের বেলা টহল দিয়েছেন ।


সবজিতে তেমন লাভ না আসায় – আর যথেস্ট যায়গা থাকায় দেশি মুরগি পালা শুরু করলেন, বাড়তে বাড়তে তা ৭০০+ হয়ে গেল ,
সাথে কবুতর বাড়তে থাকল খুব দ্রুত , সবজি তে লাভ না হলেও প্রতি মাসে মুরগি, কবুতর বিক্রি করেই উনার মাসিক খরচের অনেকটা চলে আসল ।

অপেক্ষায় ছিলেন পেয়ারার পুরো সিজনের । ২ বছর পরে যখন, পেয়ারা গাছ বড় হল, সেগুলো মরে যাওয়া শুরু করল । অনেক বড় লস ছিল এটা । এই ধাক্কা সামাল দেয়া গেল উনার গরু থেকে আসা লাভ দিয়ে ।
এই বাধা গুলো উনাকে অন্য আরেক উপায় করার রাস্তা দেখিয়ে গেল ।

৫৩ টা গরু ৪ টা মহিষ ছিল । এর গরুর দুধ বিক্রি করে যা সৎ সেটা দিয়ে বাকি ফসল চাষ করার খরচ উঠে আসত ।


এটাও গেল ২০১৩ এর দেশে যে জ্বালাও পোড়াও শুরু হল এতে । গরুও লসে যাওয়া শুরু করলো । সব গরু বিক্রি করে দিলেন ।
আরেক ধাক্কা, এটা উনাকে বিকল্প চিন্তা করতে বাধ্য করছে ।
প্রচুর পড়াশোনা করতেন ।

এই সময়ে চা বাগান করার আইডিয়া পেলেন, এবং উনার সবচে বড় প্লট ৮ একরে চা গাছ লাগিয়ে দিলেন ।


১৮ মাস পর চা থেকে লাভ আসা শুরু করলো, সুবিধা ছিল চা গাছ গরু ছাগলে খায় না – চুরিও হয় না ।


এভাবে ট্রায়াল এন্ড ইরর বা ট্রাবল শ্যূট যাই বলা হোক – উনি উনার সমাধান খুজে বের করেছেন ।

এভাবে যখনই কোন সমস্যা এসেছে, বাধা এসেছে সেটার সমাধান খুজে বের করেছেন । নিজেকে আরো শক্তিশালি করেছেন, এই সমস্যা গুলো উনার কাজে স্থায়িত্ব নিয়ে এসেছে ।

2 Comments

  1. Ashik Chowdhury

    আপনার ব্লগ গুলো পড়তে অনেক ভালো লাগে। লেখার পরিমাণ যদি আরো বাড়াতেন ভালো হতো।

    Reply
    • muJahid

      আসলে কাজ করে, চাকুরি আর ফার্মের কাজ সামলে কঠিন হয়ে যায় । ভাল একটা লেখা লিখতে সময় লাগে, এদিকে চাষের কাজ আবার খুবই টেকনিক্যাল বিষয় – ইচ্ছে করলেই কিছু লিখতে পারিনা । যা লিখছি তা সঠিক কিনা এটা নিশ্চিত হওয়াটা জরুরি ।
      আমি চেস্টা করব আরো বেসশি লিখতে ।

      Reply

Submit a Comment

Your email address will not be published.

আবর্তনশীল ক্ষেতি পদ্ধতি

আবর্তনশীল ক্ষেতি পদ্ধতি

এক রাখাল, তার গাইকে চড়াতে দিয়ে গাছের ছায়ায় আরামেই বসেছিল । আধা মুর্খ সেই রাখালের কাছে এক সরকারি কৃষি কর্মকর্তা গেল এবং আলোচনা শুরু করল ।সরকারি লোক জিজ্ঞেস করল - তোমার এই গরু কত লিটার দুধ দেয় ?রাখাল - আমার পরিবারের জন্য যথেস্ট পরিমান ।সরকারি লোকঃ তুমি কেন কৃত্রিম...

কিউবা বিশাল বিপদে পড়ে গিয়েছিল ।

কিউবা বিশাল বিপদে পড়ে গিয়েছিল ।

সোভিয়েত ইউনিয়ন ভেঙ্গে যাবার পরে - কিউবা বিশাল বিপদে পড়ে গিয়েছিল । কোল্ড ওয়ার এর সময়ে কিউবাকে দেয়া সোভিয়েত সাহায্য বন্ধ হয়ে যায় ।এই সাহায্যের মাঝে ছিল কৃষি যন্ত্রপাতি, সার, ট্রাক্টর । যে কারনে, যন্ত্র নির্ভর এবং কেমিকেল সার নির্ভর কিউবার কৃষি উতপাদন ব্যাপক...

কেন আপনার ছাগলের খামার করা উচিত না ?

কেন আপনার ছাগলের খামার করা উচিত না ?

বিশেষ করে, ব্লাক বেঙ্গল জাতের ছাগলের খামার কেন করা উচিত না ।যারা ছাগলের খামার করতে চান, তারা অবশ্যই এই পোস্ট পড়বেন, পরিচিত যারা করতে চায় তার সাথে শেয়ার করতে পারেন । ঢাকায় প্রাইভেট চাকুরি করা মাসুম ভাই, ইউটিউবে ভিডিও দেখে খবই উতসাহিত হলেন । তার চাকুরি করতে ভাল লাগে না,...